Ad Space 100*120
Ad Space 100*120

লক্ষ্মীপুরে গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার


প্রকাশের সময় : ৬ মাস আগে
লক্ষ্মীপুরে গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার

প্রতিনিধি :লক্ষ্মীপুরের দত্তপাড়ায় শারমিন আক্তার নূপুর (২০) নামে এক গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। (৩০ আগষ্ট) বুধবার দুপুরে সদর উপজেলার দত্তপাড়া ইউনিয়নের করইতোলা গ্রামে ওই গৃহবধূর স্বামীর বসতঘর থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। নিহতের পরিবারের অভিযোগ, নির্যাতন করে নূপুরকে হত্যা করা হয়েছে।নিহত নূপুর সদর উপজেলার দিঘলী ইউনিয়নের জামিরতলী গ্রামের ফখরুল ইসলামের মেয়ে ও দত্তপাড়া এলাকার ওমান প্রবাসী মোহাম্মদ উল্যা লিটনের স্ত্রী। তাদের ৮ মাস বয়সী এক ছেলে সন্তান রয়েছে।

এদিকে ঘটনার পর থেকেই নিহতের ৮ মাস বয়সী শিশু আবদুল তাকরিমকে নিয়ে শ্বশুর আবুল হোসেন, স্বামী মোহাম্মদ উল্যাহ লিটন, শ্বাশুড়ি বাসুরা বেগম, ননদ নয়ন বেগম, কাজল রেখা ও পারভিন আক্তার পলাতক রয়েছে।

নূপুরের স্বামী ওমান প্রবাসী মোহাম্মদ উল্যা লিটন দত্তপাড়া ইউনিয়নের করইতোলা গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে। তিনি বর্তমানে ছুটিতে বাড়িতে অবস্থান করছিলেন।

নিহতের ছোট ভাই রাকিব হোসেন বলেন, তারা ৫ ভাই। তাদের কোন বোন ছিল না। ছোটকালে নূপুরকে তার বাবা-মা পালক নেন। নূপুরকে কখনো তারা পালক হিসেবে ভাবেননি। গত বছর ওমান প্রবাসী লিটনের সাথে নূপুরের পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। তার শ্বশুর বাড়ির লোকজনকে নুপুরের বিয়ে দেয়ার সময় পালক নেওয়ার ঘটনাটি বলা হয়নি। বিয়ের পর তারা তা জানতে পেরে নুপুরকে তার শ্বশুর বাড়ির লোকজন প্রায়ই মারধর করতেন। সংসার টিকিয়ে রাখতে তিনি কখনোই মারধরের ঘটনা পরিবারকে জানাতেন না। বিভিন্ন সময় যৌতুকের জন্য নির্যাতন করতো ওই পরিবারের সদস্যরা।
স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এটিএম কামাল উদ্দিন বলেন, নিহত ওই গৃহবধূকে তার স্বামী ও শ্বশুর পক্ষের লোকজন নির্যাতন করছে বলে সংশ্লিষ্ট ইউপি সদস্যকে জানায়। এ বিষয়ে ইউপি সদস্য তার পরিবারকে অবহিত করলে নির্য়াতনের মাত্রা আরো বেড়ে যায়। আজ ওই গৃহবধূর মরদেহ ঝুলন্ত অবস্থায় পুলিশ উদ্ধার করে।

দত্তপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এসআই আনোয়ার হোসেন বলেন, নূপুরের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।