Ad Space 100*120
Ad Space 100*120

লক্ষ্মীপুরে পর্নোগ্রাফি মামলায় যুবকের ৫ বছরের সাজা


প্রকাশের সময় : ৮ মাস আগে
লক্ষ্মীপুরে পর্নোগ্রাফি মামলায় যুবকের ৫ বছরের সাজা

লক্ষ্মীপুরের আদালত পর্নোগ্রাফি মামলায় মো. মনির হোসেন (৩১) নামে এক যুবককে পাঁচ বছর সশ্রম কারাদণ্ডের রায় দিয়েছেন । একই সাথে তার ২০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ছয় মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। বৃহস্পতিবার (১৭ আগস্ট) বেলা ১২ টার দিকে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. রহিবুল ইসলাম এ রায় দেন। রায়ের সময় দণ্ডপ্রাপ্ত আসামী আদালতে উপস্থিত ছিলেন তাকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

জেলা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। দণ্ডপ্রাপ্ত আসামী মনির হোসেন জেলার কমলনগর উপজেলার চরলরেঞ্চ ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের চরলরেঞ্চ গ্রামের আবদুর রহিমের ছেলে। সে ওই এলাকার চৌধুরী বাজারের টেলিকম ব্যবসায়ী। মামলার বাদি এক প্রবাসীর স্ত্রী। সে একই উপজেলার চর জাঙ্গালিয়া গ্রামের বাসিন্দা।

মামলার এজাহার সূত্র জানায়, বাদী একজন গৃহবধূ। তার স্বামী প্রবাসে থাকে। উপজেলার চরলরেঞ্চ ইউনিয়নের চৌধুরী বাজারে আসামী মনির হোসেনের টেলিকম দোকান রয়েছে। গৃহবধূ তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন মেরামতের জন্য মনিরের কাছে নিয়ে যায়। এ সুযোগে মনির ওই মোবাইল ফোন থেকে গৃহবধূ ও তার স্বামীর অন্তরঙ্গ চিত্র কম্পিউটারে নিয়ে নেয়। পরে সেগুলো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছেড়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে গৃহবধূকে ভয়ভীতি দেখায়।

এটাকে পুঁজি করে গৃহবধূর সাথে বিভিন্ন সময়ে অনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করে মনির। পরে সেগুলোও মোবাইল ফোনে ধারণ করে রাখে এবং গৃহবধূকে ব্লাকমেইল করে অর্থ হাতিয়ে নেয়। মনির ২০২২ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি অন্তরঙ্গ ভিডিও ফুটেজ তার ব্যবহৃত ফেজবুকের ম্যাসেঞ্জার এবং আরও দুটি ফেজবুক আইডি থেকে গৃহবধূর স্বামী এবং তার বোনের ম্যাসেঞ্জারে পাঠায়।

এ ঘটনায় ২০২২ সালের ২০ ফেব্রুয়ারী ওই গৃহবধূ বাদি হয়ে মানিরের বিরুদ্ধে কমলনগর থানায় পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করেন। এদিন পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করে। মামলাটি তদন্ত করে ৪ জুলাই আসামীর বিরুদ্ধে আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন কমলনগর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. সফিকুল ইসলাম। আদালত সাক্ষ্য প্রমানের ভিত্তিতে আসামী মনির হোসেনের বিরুদ্ধে কারাদণ্ডের রায় দিয়েছেন।