Ad Space 100*120
Ad Space 100*120

লক্ষ্মীপুরে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে শপথবাক্য পাঠ করালেন এডিসি


প্রকাশের সময় : ১ বছর আগে
লক্ষ্মীপুরে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে শপথবাক্য পাঠ করালেন এডিসি

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি: সময়ের অঙ্গীকার কন্যা শিশুর অধিকার, আর নয় বাল্যবিয়ে এগিয়ে যাব স্বপ্ন নিয়ে, ছেলেদের ২১ বছর মেয়েদের ১৮ বছর আগে বিয়ে নয় কারো এমন শ্লোগান নিয়ে লক্ষ্মীপুরে পালিত হয়েছে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ দিবস। ৪ অক্টোবর (মঙ্গলবার) সকালে লক্ষ্মীপুর জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রায় শতাধিক কিশোরীকে বাল্য বিবাহ প্রতিরোধে শপথ বাক্য পাঠ করান অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শিক্ষা ও আইসিটি মেহের নিগার ।

গ্লোবাল এফেয়ার্স অব কানাডা ও প্লান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন সি.ওয়াই.সি.ডিপি এর আওতাধীন কম্বেটিং আরলি ম্যারেজ ইন বাংলাদেশ প্রকল্প ও ইপসার আয়োজনে বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ দিবসটি পালন করা হয়। প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন ২০১৪ সালের ২২ জুলাই গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী লন্ডনে অনুষ্ঠিত গার্লস সামিটে ঘোষনা দেন ২০২১ সালের মধ্যে ১৫ বছরের নীচে সকল শিশুর বাল্যবিবাহ বন্ধ করবেন। ১৫-১৮ বছর বয়সের মধ্যে বাল্যবিবাহের হার এক তৃতীয়াংশে হ্রাস করবেন এবং ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে শতভাগ বাল্যবিবাহ মুক্ত করবেন।

সরকারের এ লক্ষ্যপূরণে সরকারী বেসরকারী নানা উদ্যেগ গ্রহণ করা হয়েছে। ২০১৭ সালে বাল্য বিবাহ নিরোধ আইন প্রনয়ণ, ২০১৮ সালে বিধিমালা ও ২০১৮ সালে জাতীয় পরিকল্পনা প্রনয়ন করেছেন। মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর অনুমোদনক্রমে ২০১৪ সাল হতে বাংলাদেশ সরকার বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ দিবস পালন করে থাকে। প্রতিবছর শিশু ্অধিকার সপ্তাহের একটি দিনে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ দিবস পালন করা হয়। বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা ইপসা যে আয়োজনটি করেছেন তা সত্যিই প্রশংসনীয়।
সবাই মিলে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে কাজ করলে আমরা ্অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারব বলে আমাদের বিশ^াস। জেলা মহিলা বিষয়ক কার্যালয়ের উপ-পরিচালক সুলতানা জোবেদা খানম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী খালেদা আক্তার, নারী নেত্রী মমতাজ বেগম, বেসরকারী এনজিও ভয়েস এর নিবার্হী পরিচালক সামছুল আলম লিটু, সাংবাদিক মো: রবিউল ইসলাম খান, গ্লোবাল এফেয়ার্স অব কানাডা ও প্লান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন কম্বেটিং আরলি ম্যারেজ ইন বাংলাদেশ(সিইএমবি) প্রকল্প জেলা সমন্বয়কারী সাজেদুল আনোয়ার ভূঁইয়া,রিয়াদ হোসেন, মারজাহান বেগম শিমু প্রমুখ।