Ad Space 100*120
Ad Space 100*120

লক্ষ্মীপুরে হত্যা মামলার প্রধান আসামির চিকিৎসাধিন অবস্থায় মৃত্যু


প্রকাশের সময় : ৩ years ago
লক্ষ্মীপুরে হত্যা মামলার প্রধান আসামির চিকিৎসাধিন অবস্থায় মৃত্যু

লক্ষ্মীপুরে রামগঞ্জে ইছাপুর ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি নির্বাচনে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের সংর্ঘষে ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি সাজ্জাদ হোসেন সজিব নিহতের ঘটনার হত্যা মামলার প্রধান আসামী মাসুদ আলম মারা গেছেন। বৃহস্পতিবার (৯ডিসেম্বর) ভোররাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা কারাগারের জেলার মো. শাখাওয়াত হোসেন ।

তিনি জানান, ৩০ নভেম্বর সজিব হত্যা মামলার আসামী মাসুদ আলম আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়। তখনও সে গুরুতর আহত ছিল। পরে ১ ডিসেম্বর চিকিৎসার জন্য প্রথমে সদর হাসপাতাল ও পরে কুমিল্লা মেডিকেলে পাঠানো হয়। মাসুদের অবস্থার অবনতি হওয়ায় ওইদিন রাতে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। ৮ দিন হাসপাতালে ভর্তি থাকার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার ভোররাতে মারা যায় মাসুদ।

এ ব্যাপারে রামগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, মাসুদ আলম সজিব হত্যা মামলার প্রধান আসামী ছিলেন। ওই মামলায় তাকে গ্রেপ্তার করে ৩০ নভেম্বর আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়। এর বাহিরে কোন কিছুই জানা নাই।

উল্লেখ্য,২৮ নভেম্বর তৃতীয় দফায় ইউপি নির্বাচনে দিন বিকাল পৌনে চারটার দিকে ইছাপুর ইউনিয়ন পরিষদের নয়নপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রের বাইরে আওয়ামীলীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী শাহেনাজ আক্তার ও বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রাথী আমির হোসেন খানের সমর্থকদের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে দু-পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এসময় ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি সাজ্জাদ হোসেন সজিব গুরুতর আহত হয়। আহত হয় মাসুদ আলমও। পরে ওইদিন সন্ধ্যায় গুরুতর আহত অবস্থায় সজিবকে ঢাকা নেয়ার পথে চাঁদপুরে মারা যায় সে। এ ঘটনায় পরের দিন নিহত ছাত্রলীগ নেতা সজিব হোসেনের বোন বাদী হয়ে রামগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় মাসুদ আলম, বিজয়ী চেয়ারম্যান আমির হোসেন খাঁনসহ ২২জনের নাম উল্লেখ করে আরো ২০জনকে অজ্ঞাত আসামী করা হয়।