Ad Space 100*120
Ad Space 100*120

লক্ষ্মীপুর জেলা সাহিত্য সংসদের ২৬ তম সাহিত্য সম্মেলন অনুষ্ঠিত


প্রকাশের সময় : ২ মাস আগে
লক্ষ্মীপুর জেলা সাহিত্য সংসদের ২৬ তম সাহিত্য সম্মেলন অনুষ্ঠিত

লক্ষ্মীপুর জেলা সাহিত্য সংসদের ২৬ তম সাহিত্য সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।সম্মেলনে লক্ষ্মীপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য মিয়া মো: গোলাম ফারুক পিংকু বলেছেন, ভাষার অধিকার অর্জনকারী বাঙালি জাতিকে কেউ দাবিয়ে রাখতে পারেনি। বহু ত্যাগের বিনিময়ে বঙ্গবন্ধু এদেশ স্বাধীন করেছিলেন। ভাষার জন্য মৃত্যুবরণ করতে হয়েছে যে দেশে, সেটা বাংলাদেশ। সাহিত্য চর্চা ও সাহিত্য সম্মেলন করে এবং আমাকে সংবর্ধিত করে লক্ষ্মীপুর জেলা সাহিত্য সংসদ দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। সাহিত্য সংসদের মুখপত্র বাংলা আওয়াজের ভূয়সী প্রশংসা করে তিনি বলেন সাহিত্য সংসদের প্রতি আমার সহযোগিতা থাকবে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে কবি আসাদ মান্নান বলেন,সাহিত্য সম্মেলনের মাধ্যমে জাতিকে সংস্কৃতিমৃুখী করার প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে। উদ্বোধনী বক্তব্যে কবি কাজল চক্রবর্তী বলেন, লক্ষ্মীপুরে সাহিত্য সম্মেলনে এসে আমি অভিভূত। কবি নাসির আহমদ বলেন, মফস্বলে কবিদের মনোবেদনা আমি জানি। মফস্বলের বঞ্চিত কবিরাই বই কিনে। তাই এই সাহিত্য সম্মেলন অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। কবি আসলাম সানী বলেন,বিপথগামী বাঙালিরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে বাংলাদেশকে পিছিয়ে দিয়েছে। সাহিত্য সংস্কৃতিসেবীদের দেশকে এগিয়ে নিতে হবে।
জেলা প্রশাসক সুরাইয়া জাহান বলেন, লক্ষ্মীপুর কে জানতে হলে সাংস্কৃতিক চর্চার বিষয় গুলো জানতে হবে। গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাসকে ধারণ করেই আমরা এ পর্যায়ে এসেছি। ভার্ষা আন্দোলকারী দেশে সাহিত্য সংস্কৃতি চর্চা অব্যাহত না থাকলে ২০৪০ সালের মধ্যে উন্নত দেশ হবার স্বপ্ন ব্যাহত হবে। তিনি শিক্ষক ও অভিভাবক মন্ডলীকে সাহিত্য সাংস্কৃুতিক চর্চা মধ্য দিয়ে সন্তানদের লালন করার জন্য আহবান জানান।
লক্ষ্মীপুর জেলা সাহিত্য সংসদ এর ২৬ তম সাহিত্য সম্মেলন বক্তারা এসব কথা বলেন। ২৩ ফেব্রুয়ারী (শুক্রবার) সদর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সাহিত্য সংসদের সভাপতি ডা: মো: সালাহউদ্দিনের শরীফের সভাপতিত্বে সমাপনী অনুষ্ঠানে লক্ষ্মীপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য মিয়া মো: গোলাম ফারুক পিংকু এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা তোফায়েল আহমদ সাবেক তত্ত্বাবাধয়ক প্রকৌশলী (বিআরটিএ) কে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক সুরাইয়া জাহান। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন সাহিত্য সংসদের সাধারণ সম্পাদক গাজী গিয়াস উদ্দিন। বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় কবিতা পরিষদের সাবেক সাধারণ সম্পাদক প্রখ্যাত ছড়াকার আসলাম সানী,বিএমএ জেলা শাখার সভাপতি ডা: আশফাকুর রহমান মামুন,বঙ্গবন্ধু পরিষদ জেলা শাখার সভাপতি শাহজাহান কামাল। সংবর্ধিত অতিথিদের অভিনন্দন জানিয়ে বক্তব্য রাখেন সাহিত্য সংসদের সিনিয়র সভাপতি ও শিক্ষক নেতা মোশাররফ হোসেন চৌধুরী এবং স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের জেলা সভাপতি মাহবুবুর রশীদ চৌধুরী
বিকেলে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সম্মেলন উদ্বোধন করেন কলকাতার প্রখ্যাত কবি কাজল চক্রবর্তী। প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক সচিব কবি আসাদ মান্নান। অনুষ্ঠানে লক্ষ্মীপুর জেলা সাহিত্য সংসদ সম্মাননা ২০২৪ ভূষিত করা হয় বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার প্রাপ্ত এবং বিটিভির সাবেক পরিচালক বার্তা কবি নাসির আহমেদ এবং বিশিষ্ট ছড়াকার আসলাম সানীকে। বাংলা আওয়াজ লেখক সম্মাননা ২০২৪ প্রদান করা হয় কবি সৌহার্দ সিরাজ (সাতক্ষীরা) ও কবি ম. পানা উল্যাহ (নোয়াখালী)। জেলার বর্ষসেরা কবি সম্মাননা ২০২৪ পেয়েছেন সাহিত্য সংসদের যুগ্ন সম্পাদক কবি ফখরুল ইসলাম আনোয়ার এবং জেলার বর্ষসেরা আবৃত্তিকার সম্মাননা ২০২৪ পেয়েছেন সেজুতি ইনষ্টিটিউটশনের জেলা সভাপতি হোসনে আরা কানন।
আঞ্চলিক সাহিত্য সংগঠন ও সাহিত্য চর্চা শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সাহিত্য সংসদের সাধারণ সম্পাদক গাজী গিয়াস উদ্দিন। আলোচনায় অংশ নেন সাহিত্য সংসদের সিনিয়র সহসভাপতি বিশিষ্ট সংগীত শিল্পী ও মাহবুবুল বাসার এবং আবৃত্তি চর্চা কেন্দ্রের সভাপতি কার্তিক সেন গুপ্ত।
অনুষ্ঠানে সঞ্চালনা করেন বিশিষ্ট আবৃত্তিকার সাহিত্য সংসদের যুগ্ন সম্পাদক ফাহমিদা মাহবুব রূপা ও কাজী ফারুকী কলেজের সহকারী অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম । কবিকণ্ঠে কবিতা আবৃত্তি পাঠ করেন কবি এস এম জাহাঙ্গীর, কবি রওশন রূবী, কবি সালেহা খানম ও ওমর ফারুক পাটোয়ারী প্রমুখ।অনুষ্ঠানে স্বরচিত কবিতা পাঠ ও আবৃত্তি প্রতিযোগিতায় এবং সাহিত্য কুইজ প্রতিযোগিতায় বিজয়ী শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। স্থানীয় কবিতা লেখকদের প্রকাশিত বইপত্র নিয়ে বুকস্টল স্থাপন করা হয়।