Ad Space 100*120
Ad Space 100*120

লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা বাল্য বিবাহ নিরোধ আইন ও বিধিমালা বিষয়ক ওরিয়েন্টেশন


প্রকাশের সময় : ১ বছর আগে
লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা বাল্য বিবাহ নিরোধ আইন ও বিধিমালা বিষয়ক ওরিয়েন্টেশন

প্রতিরোধ কমিটি কার্যকর ভূমিকা না রাখলে বাল্য বিবাহ নিয়ন্ত্রণ হবেনা
লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি: উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ কমিটি রয়েছে। কমিটিতে উপজেলা পর্যায়ে সরকারী কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, শিক্ষক, ইমাম ও গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ রয়েছে। তারা যদি কার্যকর ভূমিকা না রাখে তা হলে সমাজে বাল্য বিবাহ নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবেনা। বাল্য বিবাহ রোধে সকলকে একযোগে কাজ করতে হবে। শুধু আইন দিয়ে বাল্য বিবাহ বন্ধ করা যাবেনা।
প্রধানমন্ত্রী লন্ডনে অনুষ্ঠিত গার্লস সামিটে ঘোষনা দেন ২০২১ সালের মধ্যে ১৫ বছরের নীচে সকল শিশুর বাল্যবিবাহ বন্ধ করবেন। ১৫—১৮ বছর বয়সের মধ্যে বাল্যবিবাহের হার এক তৃতীয়াংশে হ্রাস করবেন এবং ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে শতভাগ বাল্যবিবাহ মুক্ত করবেন।
সরকারের এ লক্ষ্যপূরণে সরকারী বেসরকারী নানা উদ্যেগ গ্রহণ করা হয়েছে। ২০১৭ সালে বাল্য বিবাহ নিরোধ আইন প্রনয়ণ, ২০১৮ সালে বিধিমালা ও ২০১৮ সালে জাতীয় পরিকল্পনা প্রনয়ন করেছেন।
বাল্য বিবাহ মুক্ত করতে হলে নারীদের শিক্ষিত করতে এবং নারীর অধিকার ও ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করতে হবে। গালর্স নট ব্রাইড বাংলাদেশ এর উদ্যোগে ৩০ অক্টোবর (রোববার) লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে বাল্য বিবাহ নিরোধ ও বিধিমালা বিষয়ক সদর উপজেলা বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ কমিটির অবহিতকরণ সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।
সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: ইমরান হোসেন এর সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চন্দ্রগঞ্জ থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তোহিদুল ইসলাম, সদর থানা (ওসি তদন্ত) মো: মমিনুল হক, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: শাহীন আহমেদ, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী খালেদা আক্তার।
বক্তব্য রাখেন,প্লান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ চাইল্ড প্রোটেকশন স্পেশালিষ্ট সুমনা চৌধুরী, ইপসার জেলা সমন্বয়কারী মোহাম্মদ সাজেদুল আনোয়ার ভূঁঞা, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার দোলোয়ার হোসেন মজুমদার, ইউপি চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবির পাটোয়ারী,নুরুল আমিন লোলা, কামরুজ্জামান সোহেল,ওয়াহিদুর রহমান, লক্ষ্মীপুর আদর্শ সামাদ উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক মো: আমিনুর রশিদ, জাতীয় মহিলা সংস্থা জেলা কর্মকর্তা মুহাম্মদ আনোয়ার পাশা প্রমুখ। এসময় উপজেলা পর্যায়ে অন্যান্য কমিটির সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।