Ad Space 100*120
Ad Space 100*120

শীত নিবারণে রায়পুরে ফুটপাতের দোকানগুলোতে ভিড়


প্রকাশের সময় : ১ মাস আগে
শীত নিবারণে রায়পুরে ফুটপাতের দোকানগুলোতে ভিড়
রায়পুর (লক্ষ্মীপুর):পৌষের মাঝামাঝি মেষনা উপকূলীয় পশ্চিমের জেলা লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে বয়ে যাচ্ছে হিমেল হাওয়া, সেই সঙ্গে বেড়েছে শীতের তীব্রতা। আবহাওয়া অধিদফতর জানায়, রোবিবার (১৪ জানুয়ারি) রায়পুরে তাপমাত্রা ১৭ দশমিক ২২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। জানুয়ারির শুরু থেকেই জেলায় তাপমাত্রা কমে যাওয়ায় তীব্র শীত অনুভূত হচ্ছে। এ অবস্থায় এ অঞ্চলে বেড়েছে শীতবস্ত্রের চাহিদাও। নিম্ন আয়ের মানুষ প্রচণ্ড শীত থেকে বাঁচার জন্য গরম কাপড় কিনতে হুমড়ি খেয়ে পড়ছেন ফুটপাত ও খোলা জায়গার দোকানগুলোতে। এদিকে, সরকারি ভাবে রায়পুরে সাড়ে চার হাজার কম্বল এসেছে। এলাকার গরিবদের বিতরনের জন্য বুধবার ইউপি চেয়ারম্যানদের কাছে দেয়া হয়।।
লক্ষ্মীপুরের আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের আবহাওয়া উচ্চ পর্যবেক্ষক মোঃ সোহরাব হোসেন এ প্রতিবেদককে বলেন, ‘দিনের পর দিন বেড়েই চলেছে শৈত্যপ্রবাহ। আর ঠক ঠক করে কাঁপছেন এই জেলার পাঁচ উপজেলার খেটে খাওয়া মানুষজন। বিশেষ করে জেলার রায়পুর উপজেলার মেঘনার চরের মানুষ এই শীতে খড়কুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারণ করছে। বয়স্ক ও শিশুরা নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।’
লক্ষ্মীপুরের রায়পুর নতুনবাজার ও দালালবাজারে পুরনো কাপড়ের দোকান গুলোতে শীতের পোশাক কিনতে আসা মানুষের ভিড় বেড়েছে। ফুটপাত ও স্থানীয় মার্কেটগুলোতে গরম কাপড় চাহিদা বেড়েছে।
শহরের অলিতে-গলিতে শীতের পোশাকের দোকান দিয়ে বসেছেন ভাসমান ব্যবসায়ীরা। এসব দোকানে কম দামে বিদেশি পুরনো গরম কাপড় মিলছে সস্তায়। সকাল থেকে শুরু করে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত খোলা থাকে এসব দোকান। অল্প পয়সায় পছন্দের গরম কাপড় দেখেশুনে কিনছেন ক্রেতারা। উপজেলা শহরের নতুনবাজার, প্রধান সড়কে ও দালাল বাজারে হাট বসে সপ্তাহে দুই দিন। এ ছাড়াও প্রতিদিন সোয়েটার, ট্রাউজার, টুপি, কম্বল ও শিশুদের পোশাক কম দামে বেচাকেনা হয়।
নতুনবাজারে ভাসমান দোকানদার হাবিবুর রহমান বলেন, ‘বিভিন্ন পেশার মানুষ আমাদের কাছে শীতের পোশাক কিনতে আসেন। তাদের মধ্যে নিম্ন ও মধ্যবিত্ত শ্রেণির ক্রেতাই বেশি। সেই সঙ্গে ভ্যানচালক, রিকশাচালক, দরিদ্র নারী-পুরুষ শীতবস্ত্র কিনছেন।’এসব পোশাকের দামের বিষয়ে বলেন, ‘সর্বনিম্ন ৫০ টাকা থেকে ৩৫০ টাকা পর্যন্ত শীতের পোশাক বিক্রি হচ্ছে। এর মধ্যে সোয়েটার, ট্রাউজার, জ্যাকেট, মাফলার, মানকি ক্যাপ, প্যান্ট, শার্ট, পায়ের ও হাতের মোজাসহ নানা রকমের শীতের পোশাক বিক্রি হচ্ছে।’একজন ক্রেতা কেরোয়া গ্রাম থেকে আসা মোঃ রহমান বলেন, ‘চার সদস্যের পরিবারে আমি একমাত্র উপার্জনক্ষম। তাই কমদামে খোলা বাজারে শীতের পোশাক নিতে এসেছি। শীত যতই বাড়ছে ততই পুরনো কাপড়ের চাহিদা বাড়ছে। এখানে কম দামে গরম কাপড় পাওয়া যাচ্ছে। না হলে আমাদের ঠান্ডায় মরতে হতো।রায়পুর এলএম পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক মাহবুবুর রহমান ও বিশিষ্ট সমাজ সেবক তাহসীন হাওলাদার বলেন, ‘পুরনো কাপড় না এলে গরিব ও নিম্ন আয়ের মানুষজন চরম বিপাকে পড়তো। জানুয়ারি মাসে শীতের প্রকোপ যথেষ্ট বেড়েছে। তবে এখনও সরকারি ও বেসরকারিভাবে শীতার্ত মানুষের জন্য চাহিদার তুলনায় শীতবস্ত্র আসেনি (সারে চার হাজার)। শুনেছি, ইউএনও অফিস থেকে আবারও কম্বলের চাহিদা পাঠানো হয়েছে।’